নিরক্ষর নারী যেভাবে কুরআন হেফজ সম্পন্ন করলেন

434

চোখে দেখেন না; দৃষ্টিশতিক্তহীন কিন্তু পরিপূর্ণ পবিত্র কুরআনুল কারিমের হাফেজ; এমন অসংখ্য নজির রয়েছে বিশ্বব্যাপী। কিন্তু আরবি অক্ষর চেনেন না, অক্ষর জ্ঞান নেই; এ রকম মানুষের দ্বারা পবিত্র কুরআন হেফজ সম্পন্ন করার ঘটনা খুবই বিরল।

এমনই একজন অক্ষরজ্ঞানহীন নারী সামিরা আবদুস সাত্তার মুতাওয়ালিদ। তিনি মধ্য মিসরের ফাইউম গভরনেট অঞ্চলের রাজধানী ফাইউম-এর অধিবাসী। যিনি শৈশব, কৈশোর এবং যৌবন বয়সে কুরআন শিখতে পারেনি।

অবশেষে জীবনে ৫৭টি বসন্ত পেরিয়ে কুরআনুল কারিমের হেফজ সম্পন্ন করলেন। বাস্তবে তিনি ছিলেন অক্ষরজ্ঞানহীন নারী। এ ঘটনাটি মুসলিম উম্মাহর জন্য যেমন বিস্ময়কর আবার অক্ষরজ্ঞানহীন নারী-পুরুষদের জন্য অনুপ্রেরণাও বটে।

ছোট বেলায় বিভিন্ন সমস্যার কারণে তিনি সব ধরনের শিক্ষা ব্যবস্থা থেকে বঞ্চিত ছিলেন। কিন্তু কুরআন শেখার ব্যাপারে তাঁর মধ্যে ছিল প্রবল আগ্রহ। যে আগ্রহ তাকে বৃদ্ধা বয়সে পবিত্র কুরআনুল কারিম পরিপূর্ণভাবে হেফজ করতে সফলতার পথ দেখিয়েছে।

জীবনের পড়ন্ত বেলায় কুরআনুল কারিমের তেলাওয়াতের অডিও শুনে শুনে তিনি কুরআনুল কারিম হেফজ সম্পন্ন করেন। কুরআনুল কারিম হেফজ সম্পন্ন করতে তাঁর সময় লেগেছে দীর্ঘ ৬ বছর।

সম্প্রতি অক্ষরজ্ঞানহীন ৫৭ বছর বয়সী নারী সামিরা মিশরের একটি কুরআন প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণ করে। এ প্রতিযোগিতায় তিনি শীর্ষস্থান লাভ করেন।

নিরক্ষর, দৃষ্টিশক্তিহীন ও বযস্ক মানুষের অন্তরে কুরআনের প্রেম এবং তা আয়ত্ব করার যোগ্যতা এবং তা স্মরণ রাখার বিষয়টি পবিত্র কুরআনুল কারিমের একটি বিশেষ মর্যাদা এবং আল্লাহ তাআলার একান্ত মেহেরবাণী। যা মানুষকে সত্যের পথে অনুপ্রাণিত করে তোলে।

মিসরের নিরক্ষর বৃদ্ধা নারী সামিরা হোক মুসলিম উম্মাহর কুরআন বিমুখ মানুষের অনুপ্রেরণা। আমিন।