আলেমদের মিডিয়ামুখী হতে হবে : ক্বারী আব্দুল মুকিত

611

ইসলামের প্রচার-প্রসার মূলত মিডিয়ার মাধ্যমেই।  রাসূল সা. যখন তার জীবন-জিজ্ঞাসা-ধর্ম সব নিয়ে ধ্যানে মগ্ন, পৃথিবীতে সৃষ্টি রহস্য নিয়ে নানান প্রশ্ন যখন তার মধ্যে জড়ো হলো- সেই প্রশ্নের প্রথম জবাবটা কিন্তু তিনি পেয়েছেন মিডিয়ার মাধ্যমে। সেই মিডিয়া কে ছিলেন? আল্লাহ ও তার রাসূলের মাঝখানে ছিলেন হজরত জিব্রাঈল আ.।  এই যে একটা যোগসংযোগের মাধ্যম- এটাই কিন্তু মিডিয়া এবং বর্তমানকালের মিডিয়াও কিন্তু ঠিক এমনই। অজানা জিনিসকে বস্তুনিষ্ঠভাবে মানুষকে জানানো- এটা কিন্তু ইসলামে মৌলিক শিক্ষার মধ্যে অন্যতম একটি বিষয়।  মিডিয়া এখন যুগের চাহিদা অনুযায়ী অনেক বিন্যস্ত ও সুন্দর হয়েছে। এখন আমরা মিডিয়ার মাধ্যমে সারাবিশ্বের বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত পাচ্ছি, মূলত এভাবে আমরা আমাদের জীবন জিজ্ঞাসার জবাবই পাচ্ছি।  আর এই জীবন জিজ্ঞাসাটা এবং তার পূর্ণাঙ্গ জবাবটা ইসলামের মধ্যে সবচে বেশি।

সৌদি আরব প্রবাসী, বিশিষ্ট কমিউনিটি নেতা, রাজনীতিক, শিক্ষাবিদ ক্বারী মাওলানা আব্দুল মুকিত রোববার সন্ধ্যায় সিলেট শহরের একটি অভিজাত হোটেলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মাওলানা আব্দুল মুকিত তাঁর বক্তব্যে আরো বলেন, আমরা বলি, ইসলাম হলো কমপ্লিট কোড অব লাইফ।  সুতরাং যিনি ইসলামকে ভালোভাবে জেনে মানুষকে জানাতে আগ্রহী, তিনি অবশ্যই মিডিয়ার আশ্রয় নেবেন।  এক্ষেত্রে আলেমদেরই উচিত সবচে বেশি মিডিয়ামুখী হওয়া।  মহান আল্লাহ পবিত্র কুরআনে বলেছেন ‘আমি তোমাদের উম্মতদের মধ্য শ্রেষ্ঠত্ব দিয়েছি এজন্য যে তোমরা সৎ কাজের আদেশ দেবে এবং অসৎ কাজের নিষেধ করবে’  আমি এই চিন্তা থেকেই মিডিয়ায় আলেমদের এগিয়ে আসতে হবে।  কেননা, মিডিয়ার মাধ্যমে যেভাবে ইসলামের প্রচার-প্রসার সম্ভব, সেটা অন্য কোনো উপায় এতো কার্যকরভাবে সম্ভব নয়।

কওমি মিডিয়া ফোরামের সহ-সভাপতি মাওলানা ক্বারী রফিকুল ইসলঅম জাকারিয়ার সভাপতিত্বে, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা ইমদাদুল হক নোমানীর সঞ্চালনায় কওমি মিডিয়া ফোরামের অন্যতম উপদেষ্ঠা মাওলানা আব্দুল মুকিতের সম্মানে অনুষ্ঠিত উক্ত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেদ্দা মহানগরী খেলাফত মজলিসের সাংগঠনিক সম্পাদক ক্বারী হাফিজ মঈনুদ্দীন শিবলী, কওমি মিডিয়া ফোরামের অর্থ সম্পাদক ক্বারী মাওলানা আবুল কালাম আজাদ, মাওলানা ইলিয়াস মশহুদ প্রমুখ।